৭টি ক্যাটাগরিতে ১৫ জন পেলেন জাতীয় মোবাইল অ্যাপ অ্যাওয়ার্ড

By Mahadi Hasan

unnamed
দেশের সেরা মোবাইল কন্টেন্ট ও উদ্ভাবনী অ্যাপ্লিকেশন নির্মাতাদের পুরস্কৃত করলো সরকার। গতকাল শনিবার (১৮ এপ্রিল) রাজধানীর খামারবাড়িতে কৃষিবিদ ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে আায়োজিত ‘জাতীয় মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন পুরস্কার ও ডেভেলপার সম্মেলন-২০১৫’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে ৭টি ক্যাটাগরিতে ১৪টি সেরা মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের নির্মাতা ডেভেলপারের হাতে অ্যাওয়ার্ড তুলে দিয়েছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ। জমকালো এ আয়োজনের মধ্য দিয়ে সহস্রাধিক ডেভেলপারের মহাসম্মেলনে দেশ সেরা এসব ডেভেলপারকে সর্বমোট ১০,৫০,০০০ টাকার পুরস্কার ও বিশেষ সম্মাননা স্মারক দেওয়া হয়।

জাতীয় মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন পুরস্কারের গালা ইভেন্ট এবং ডেভেলপার কনফারেন্সে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জনাব জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি প্রধান অতিথি হিসেবে এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন।

দেশের মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন শিল্প বিস্তারের লক্ষ্যে নির্মাতাদের কাছ থেকে গত বছরের অক্টোবরে স্মার্টফোন, ট্যাবলেট, আইপ্যাড, অ্যান্ড্রয়েড, আইওএস, উইন্ডোজ, ব্ল্যাকবেরি, জেটুমি প্ল্যাটফর্মে কার্যকর উদ্ভাবনী সেরা অ্যাপ্লিকেশনের মনোনায়ন আহবান করে তথ্য প্রযুক্তি বিভাগ। দীর্ঘ যাচাই-বাছাই এবং জুরি বোর্ডের মূল্যায়ন শেষে এ পুরস্কার দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘প্রথম বারের মতো সেরা উদ্ভাবনী কাজের জন্য দেশের সেরা ডেভেলপারদের পুরস্কার দিতে পেরে আমরা আনন্দিত। এখন থেকে প্রতি বছর সেরা উদ্ভাবনের জন্য এই অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হবে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশের আধুনিক রুপায়ন ডিজিটাল বাংলাদেশের কারিগর দেশের তরুণ প্রজন্ম। তাদের উদ্ভাবনী শক্তিকে কাজে লাগিয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির মাধ্যমে দেশের মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তিতে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এবং তাঁর সুযোগ্য পুত্র ও তথ্য প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজিব ওয়াজেদ জয়ের দিক নির্দেশনায় ২০২১ সালের আগেই আমরা বাংলাদেশকে মধ্য আয়ের দেশে পরিণত করবো ইনশাহ্আল্লাহ্।’

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, ‘স্মার্টফোন অ্যাপসের ২ হাজার ৫০০ কোটি ডলারের বিশ্ববাজারে যুক্তরাষ্ট্র, দক্ষিন কোরিয়া, জাপান ও যুক্তরাজ্য শীর্ষে থাকলেও বাংলাদেশের তরুণরাও এই বাজারের বড় অংশিদার। এদেশের ডেভেলপাররা আইফোন, গুগল, মাইক্রোসফটের মতো বিশ্বের নামি দামি প্রতিষ্ঠানের অ্যাপস বানাচ্ছে। সরকারীভাবে তাদের প্রয়োজনীয় সব ধরনের পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে মোবাইল অ্যাপসের বাজারে আগামীতে বাংলাদেশই নেতৃত্ব দেবে।’

অনুষ্ঠানে মোট সাতটি বিষয়ে চ্যাম্পিয়ন এবং রানারআপকে পুরস্কার দেওয়া হয়। ব্যবসা-বাণিজ্যে ‘সেলিস্কোপ’ অ্যাপ্লিকেশন বানিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে হুম্যাক ল্যাব লিমিটেড, ‘ফিন্যান্স বিডি’ অ্যাপ বানিয়ে রানার আপ হয়েছে বুয়েটের শিক্ষার্থী রাকিব উল আলম। সরকার ও জনসাধারণের অংশীদারিত্ব বিষয়ে ‘ফারমার কোয়ারি’ অ্যাপ বানিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে এমপাওয়ার এন্টারপ্রাইজেস লিমিটেড, ‘ইউনিভার্সাল মিটার রিডার’ অ্যাপ বানিয়ে রানার আপ হয়েছে সূর্যমূখী লিমিটেড। পরিবেশ ও স্বাস্থ্য বিষয়ে ‘ক্রিটিক্যাল লিংক’ অ্যাপ বানিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ক্রিটিক্যাল লিংক, ‘লাইভ ব্লাড ব্যাংক’ অ্যাপ বানিয়ে রানার আপ হয়েছে ইজি টেকনলজি। শিক্ষা, প্রশিক্ষণ বিষয়ে ‘দূরবীন’ অ্যাপ বানিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে দূরবীন ল্যাব, ‘ম্যাথ পার্কিং’ অ্যাপ বানিয়ে রানার আপ হয়েছে টিম ক্রিয়েটিভ।

এছাড়া পর্যটন ও সংস্কৃতি বিষয়ে ‘হাজি ইউজার্ড’ অ্যাপ বানিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে টিম ওমলেট, ‘বাস ম্যাপ ঢাকা’র জন্য নারডক্যাটস এবং ‘বাংলাদেশ ফ্লাইট লাইভ’ অ্যাপের জন্য স্মার্টড্রয়েড যৌথভাবে রানারআপ হয়েছে। বিনোদন ও লাইফস্টাইল বিষয়ে ‘ট্যাপ ট্যাপ আন্টস: ব্যাটেল ফিল্ড’ গেম বানিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে রাইজ আপ ল্যাবস, ‘বই পোকা’ অ্যাপ বানিয়ে রানারআপ হয়েছে মবিঅ্যাপ লিমিটেড। মিডিয়া ও সংবাদ বিষয়ে ‘দেশি আইপিটিভি’ অ্যাপ বানিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে হক জাপান ট্রেড অ্যান্ড ট্রেডিং এবং ‘বাঙ্গি নিউজ’ অ্যাপের জন্য রাানারআপ হয়েছে বাঙ্গি নিউজ। প্রত্যেকটি বিষয়ে চ্যাম্পিয়নের জন্য প্রত্যেক অ্যাপ নির্মাতা ব্যাক্তি/প্রতিষ্ঠানকে অ্যাওয়ার্ড, সার্টিফিকেট, তথ্য প্রযুক্তি বিভাগের পক্ষ প্রাইজ মানি হিসেবে থেকে ৫০ হাজার টাকা এবং রবির পক্ষ থেকে ২৫ হাজার টাকা, কিউবির সংযোগসহ ওয়াইফাই রাউটার এবং সিম্ফনির পক্ষ থেকে ট্যাবলেট উপহার দেওয়া হয়। এছাড়া রানার আপের জন্য প্রত্যেককে ক্রেস্ট, সার্টিফিকেট, তথ্য প্রযুক্তি বিভাগের পক্ষ প্রাইজ মানি হিসেবে থেকে ৩০ হাজার টাকা এবং রবির পক্ষ থেকে ১৫ হাজার টাকা, কিউবির পক্ষ থেকে উপহার দেওয়া হয়।

অ্যওয়ার্ড অনুষ্ঠনের বাস্তবায়নকারী প্রতিষ্ঠান এমসিসি লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আশ্রাফ আবিরের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে বিজীয়দের হাতে পুরস্কার তুলে দিতে স্ব স্ব ক্ষেত্রে বিশিষ্ট ব্যক্তিদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বেসিসের সভাপতি শামীম আহসান, বার্ন ইউনিটের উপদেষ্টা ডা. সীমান্ত লাল সেন, জাগো ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা করভী রাখসান্দ, চলচ্চিত্র পরিচালক মোস্তফা সারওয়ার ফারুকী, অভিনেতা পরিচালক অনন্ত জলিল প্রমুখ।

Share Button

This content is restricted to site members. If you are an existing user, please login. New users may register below.

Existing Users Log In
 Remember Me  
New User Registration
*Required field